Bangladesh-Bank-BB-Daily-Bangladesh-2204211221

৯ শতাংশ সুদহার তুলে নিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণের অন্যতম শর্ত সুদহার বাজারভিত্তিক করা। এমন পরিস্থিতিতে অনড় সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তুলে দেওয়া হচ্ছে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ ঋণের সুদহার। উচ্চ মূল্যস্ফীতির প্রভাবে সঞ্চয়প্রবণতা কমায় উচ্চ সুদে আমানত নিতে পারছে না ব্যাংক। ফলে তারল্য সংকট সৃষ্টি হয়েছে।

গতকাল রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রানীতিসংক্রান্ত এক বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার। এ সময় ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নরসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের নির্বাহী পরিচালক ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের এক কর্মকর্তা জানান, আগামী জুনে নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে। কেমন মুদ্রানীতি হবে এ বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। ঋণের সুদহার বাজারভিত্তিক করার বিষয়ে আইএমএফের শর্ত রয়েছে। এখন যে ৯ শতাংশ ক্যাপ রয়েছে, তা কিভাবে তুলে বাজারব্যবস্থার ওপর ছেড়ে দেওয়া যায়, সেটির কৌশল নির্ধারণে আলোচনা হয়েছে। যেমন লাইবর রেটের সঙ্গে ব্যাংক নির্ধারিত সুদ যোগ করে মোট সুদহার নির্ধারণ কর হয়। ঠিক সেভাবে পাঁচ ধরনের বন্ডের সুদহারের গড় রেটের সঙ্গে একটি রেট নির্ধারণ করে দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ব্যাংকাররা জানান, ব্যাংকগুলো অনেক দিন ধরেই সুদহারের সীমা তুলে দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছে। কেননা ঋণে ৯ শতাংশ সুদের সীমা থাকায় আমানতে সুদ বাড়াতে পারছে না ব্যাংকগুলো। আবার সুদ না বাড়িয়েও ঋণ পাচ্ছে না। আইএমএফের সাড়ে চার বিলিয়ন ডলার ঋণের অন্যতম শর্ত সুদহার বাজারভিত্তিক করা। সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের এক গবেষণা প্রতিবেদনেও সুদহারের সীমা প্রত্যাহার অথবা বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মেজবাউল হক বলেন, নতুন মুদ্রানীতি নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। আগামী জুনের তৃতীয় সপ্তাহে মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে। চলমান মুদ্রানীতির কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ ও আগামী মুদ্রানীতিতে কী কী থাকবে, বৈঠকে সেসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, নতুন মুদ্রানীতিতে ব্যাংকঋণের সুদহার কী করা যায়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এখানে ব্যান্ডিং ও রেফারেন্সের রেটের কথা ভাবা হচ্ছে। এসব বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। আগামী মুদ্রানীতিতে এসব বিষয়ে বিস্তারিত ঘোষণা করা হবে।

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জনের মধ্যে ভারসাম্য রাখতে মুদ্রানীতি প্রণয়ন ও প্রকাশ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। দেশের আর্থিক ব্যবস্থাপনায় মুদ্রানীতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ ঋণ, মুদ্রা সরবরাহ, অভ্যন্তরীণ সম্পদ, বৈদেশিক সম্পদ কতটুকু বাড়বে বা কমবে এর একটি পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, দুই বছর মেয়াদি বন্ডে ৭.৫৫ শতাংশ, পাঁচ বছর মেয়াদি বন্ডে ৭.৯০ শতাংশ, ১০ বছর মেয়াদি বন্ডে ৮.৩৩ শতাংশ, ১৫ বছর মেয়াদি বন্ডে ৮.৭৭ শতাংশ ও ২০ বছর মেয়াদি বন্ডে সুদের হার ৮.৯৫ শতাংশ। অর্থাত্ এই পাঁচ ধরনের বন্ডে সুদহারের গড় ৮.৩০ শতাংশ। এই রেটের সঙ্গে যদি বাংলাদেশ ব্যাংক ৫ শতাংশ করিডর রেট নির্ধারণ করে দেয়, তাহলে ১৩.৩০ শতাংশে ঋণ বিতরণের সুযোগ পাবে ব্যাংক। অর্থাৎ এই নীতিমালা বাস্তবায়িত হলে ব্যাংকঋণের সর্বনিম্ন সুদহার এক লাফে ৪ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও আইএমএফের ঋণ পাওয়ার শর্ত পূরণ করতেই এ সিদ্ধান্তের কথা ভাবছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

সূত্রঃ কালের কন্ঠ 
Bangladesh-Bank-BB-Daily-Bangladesh-2204211221

EDF reduced to $5.5b, banks to face penalty interest for repayment delay

Banks will have to pay 4% “penal interest” if they fail to repay loans taken from the Export Development Fund (EDF) formed from the country’s foreign exchange reserves on time, according to a circular issued by the Bangladesh Bank on Sunday. 

The central bank has made the decision as several banks have been delaying the repayment of EDF loans for a long time, officials concerned have told The Business Standard.

Data obtained from the central bank on 19 March show that the outstanding amount of EDF loans currently stands at $5.5 billion.

To reduce the strain on its reserves, the central bank has been more aggressive in recovering outstanding EDF loans than disbursing new loans from the fund. In the last two and a half months, the amount of outstanding EDF loans has been reduced by over $1.5 billion.

According to central bank sources, the size of the EDF at the beginning of January this year was more than $7 billion, which was reduced to $6 billion by the third week of the month.

A senior official of the central bank said that the size of the EDF is regularly being reduced in accordance with the advice of the IMF.

According to the central bank’s guidelines, foreign exchange assistance is provided to exporters for importing raw materials under the EDF. An EDF loan has a tenor of 180 days and this period can be extended by another 90 days subject to the approval of the Bangladesh Bank. But, many banks failed to repay EDF loans even long after the completion of the extended period, prompting the central bank to impose penal interest.

The latest circular of the central bank says that the penal interest or compensation in the case of Shariah-based Islamic banking will be charged at a rate of 4% per annum above the prevailing interest rate on the overdue amount of EDF loans for the delayed period.

According to industry insiders, the interest rate of EDF loans was previously determined in accordance with the London Interbank Offer Rate (Libor). Until the beginning of the Covid-induced economic downturn, the interest rate of EDF loans was fixed by adding 1.5% to the 6-month average Libor.

However, to reduce the cost of funds amid the coronavirus pandemic, the interest rate was fixed at 2% in the first phase. Later on 20 July last, the rate was increased to 3%. Finally, the Bangladesh Bank increased the interest rate to 4.5% in January this year.

According to several sources of the central bank, the size of EDF will be downsized by another $2-3 billion within the next six months.

The central bank is planning to phase out foreign currency lending from EDF, which is made up of foreign currency.

The IMF delegation that visited Dhaka in December last year to discuss the terms and conditions for the $4.5 billion loan also suggested that the central bank exclude the existing EDF loans from its reserve calculation, sources at the central banks told The Business Standard.

Anwar-ul Alam Chowdhury, chairman of Evince Textiles Ltd, told TBS, “EDF was instrumental to increasing our country’s exports. Through this, traders could take funds at low interest. The latest central bank instruction will discourage them from doing so.”

“If the interest rate of this fund is high, the product cost will also be high, which will trigger sales problems. It is true that the government is under some pressure because of the IMF’s loan conditions, but phasing out EDF should have been done slowly. At least a year would have given everyone a chance to sort it out,” he said.

“Backward linkages will face some major problems as they have to bring the cotton in advance. Besides, textile mills import yarn with EDF funds. At present, they have fewer orders, and if the import cost becomes high, they will face a big problem,” Anwar-ul Alam Chowdhury said.

The central bank has reduced the size of the EDF but created a new fund of Tk10,000 crore as part of its decision to build an EDF in local currency to support exporters by providing loans at 4% interest.

In this regard, several exporters said the problem remains even if the fund is provided in local currency. Because Bangladeshi traders have to pay more than Tk110 for a dollar to import goods but get a lower rate when they export.

At present, the gross foreign currency reserves of the country stand at $31.28 billion, but if the IMF calculation is taken into account, the figure will be nearly $24 billion, according to central bank sources.

banks-loan-rescheduling

Banks waive off Tk5,064cr in loan interests in 2022

Sector insiders blame the central bank’s liberal policy that empowers bank owners to waive loan interests on nominal down payments

Infograph: TBS

Infograph: TBS

Default loan rescheduling and loan interest waivers have increased at an unusual rate in the banking sector, according to the latest Bangladesh Bank data.

Lenders waived off some Tk5,064 crore while rescheduling loans throughout 2022. It is Tk3,209 crore higher than that of the previous year.

For such a situation, sector insiders blamed the liberal policy of the central bank which empowered bank owners to waive loan interests on nominal down payments.

Besides, the desperate attitude of banks to recover outstanding loans which got stuck thanks to pandemic-induced relaxed policies also contributed to the surge in waived-off interests.

“All the benefits of loan rescheduling and waiver are received by some large borrowers, who are mostly wilful defaulters,” Salehuddin Ahmed, former central bank governor, told The Business Standard.

“Currently the banking sector is very unfortunate. The central bank is not taking proper actions, banks are tactfully making their balance sheet look good. No one is giving due importance to protecting the interests of the depositors.”

“The central bank should play a stronger role to curb such irregularities in the banking sector. For example, strict measures should be taken if any customer defaults. At the same time, new loans should be scrutinised properly,” he added.

According to the Bangladesh Bank, banks waived off Tk1,194 crore in loan interest in 2018 as the figure jumped to Tk2,293 crore next year. It dropped slightly to Tk1,578 crore in 2020 and spiralled again to Tk1,855 crore in 2021.

Besides, banks rescheduled loans of Tk27,279 crore in 2022, almost two times more than Tk12,380 crore in 2021. It was Tk13,468 crores in 2020.

Thanks to the latest interest waivers, the amount of defaulted loans of banks fell to Tk1.20 lakh crore at the end of December 2022 from Tk1.32 lakh crore in January of that year, Bangladesh Bank data said.

“It would have been good if banks had waived interest on bad loans [to small borrowers]. The benefit of the interest waiver is gone to large groups, unfortunately,” a central bank official, wishing to remain unnamed, told The Business Standard.

Last year, a Chattogram-based group got large amounts of interest waiver from National Bank and a state-owned bank, he added.

Regarding defaulted loans, former governor Salehuddin Ahmed said, “This is not the actual amount of defaulted loans in the banking sector. The figure has been hidden in various ways.”

“International rating agencies are marking our banking sector negatively, which is bad for the overall economy. Our imports will suffer and interest rates on foreign loans will increase, as a consequence. Mass people will be the ultimate sufferer,” he added.

“Now, many banks are in a liquidity crisis.  At the same time, their defaulted loans are increasing. Such banks are set to see more difficulties soon,” a private bank managing director, asked not to be named, told TBS.

“Banks have been stuck with defaulted loans of customers for a long time. Hence, they are trying to recover their money even though they need to waive some amounts, which is why interest waivers have been on the rise,” he added.

The Bangladesh Bank, in a circular in July last year, empowered boards of banks for rescheduling new loans on 2.5-4.5% deposits. Prior to that, the central bank’s approval was required to regularise the loans and 10-30% deposits were mandatory. Besides, the time limit for repayments was extended up to eight years, from the previous two years.

Source: The Business Standard

Screenshot_7

Rising foreign debt to create trouble

The increasing foreign debt will create problems for Bangladesh unless structural problems in the country’s financial sector are addressed, said economists at an inter-department dialogue at the University of Dhaka yesterday.

“The ongoing IMF credit programme will not become effective if discipline in the financial sector cannot be improved,” said Rashed Al Mahmud Titumir, chairperson of the department of development studies at the university.

The dialogue, held at the Muzaffar Ahmed Chowdhury Auditorium, was organised by three departments of the university, namely economics, international relations and development studies.

Citing how the Covid-19 pandemic exposed structural problems in the economy, Titumir said Bangladesh has long been facing different crises such as the lack of corporate governance in banks and money laundering.

“The volume of the country’s deficit and debt is not the major problem,” he said, adding that the main thing is whether the funds are being invested in productive sectors.

Titumir reckons that things will get critical if the government uses the funds for consumption, such as providing salaries to its staff.

The amount of foreign loans taken by both the public and private sectors has doubled in the last five years.

By the end of December 2022, the country’s total private sector foreign debt amounted to $24.1 billion in contrast to $12.52 billion in 2018.

The government took initiatives to mobilise foreign funds by issuing sovereign bonds during the period of Finance Minister AMA Muhith.

“We might have faced a severe crisis had the bonds been issued,” Titumir said.

Muhammad Shahadat Hossain Siddiquee, a professor of economics at Dhaka University, said the volume of foreign debts in the country is now on the rise.

The country is now availing foreign sources for commercial loans that cannot be restructured, which is not good, he added.

Siddiquee said that it remains uncertain how the government calculates the GDP growth of Bangladesh.

“The required information and data on GDP growth are not provided by the concerned government agencies to understand the trend of the growth,” he added.

Siddiquee pointed out that governments usually set their revenue mobilisation targets by observing the GDP growth.

“But revenue mobilised by the government is decreased when the GDP sees higher growth,” he said, adding that this means the government is not strong enough.

Anis Chowdhury, an adjunct professor at Western Sydney University, presented a keynote paper titled “Developing Countries’ Debt Crisis – Chinese or Western trap” at the discussion.

He said the developing countries’ looming debt crises are being worsened by structural shifts in debt composition towards riskier commercial loans characterised by shorter maturities, higher interest rates, and little or no restructuring options.

Such shifts are due to multiple reasons that can be traced to the deliberate acts of Western donors and the multilateral institutions dominated by them, such as the World Bank and the International Monetary Fund.

One reason is the decline in concessional development finance and broken aid promises, including SDGs and climate finance, Chowdhury said.

Besides, most developing countries have turned to riskier borrowing from international capital markets, and commercial debts now constitute more than half of their public debt.

Such loans are usually of shorter durations and attract higher interest rates while having almost no restructuring or refinancing options, said Chowdhury, a former director at the Macroeconomic Policy and Development Division of the UN-ESCAP.

Chinese debt constitutes less than 20 per cent of developing countries’ public debt and less than 15 per cent in low-income countries.

Chinese loans are quite diverse with only a small part of Chinese loans involving commercial conditions, he added.

Among others, Zia Rahman, dean of the faculty of social sciences, Masuda Yasmeen, chairperson of the department of economics, Mohammad Tanzimuddin Khan, a professor of international relations, Faruk Shah, an associate professor of development studies, and ABM Omor Faruque, an assistant professor of development studies, addressed the event.

Source: Star Business Report

Dollar

Now exporters to get Tk104 per dollar for export proceeds

All authorised dealer banks will have to follow this new rate from 1 March

Banks will now pay the dollar rate of Tk104 to bring export proceeds to the country quickly, according to rate fixed by Bangladesh Foreign Exchange Dealers’ Association (Bafeda).

All export proceeds and other inward remittances including commercial remittances irrespective of ticket size will be bought by the banks at a fixed rate of Tk104 per US dollar (instead of the earlier Tk103), reads a notice published by Bafeda on Wednesday (1 March).

In the notice, it was said that the exchange rate for dollars is being fixed for remittance with a view to stabilise the foreign exchange market and to better serve the customer of all segments.

This new rate will be effective from 1 March and all authorised dealer banks will have to follow this rate.

Also, all wage earners and white collar NRB’s remittances (only those who are entitled to receive the existing 2.50% GoB incentives) received through Exchange Houses (both for banks own Exchange House(s) and third party Exchange Houses) and formal banking channel will be bought by the banks at a rate not higher than Tk107 per US dollar,” reads the notice.

Source: TBS News

prothomalo-english_import_media_2018_02_13_2d1a49123351d2fc6393600cae202ac9-Sonali-Bank

ভুয়া কাগজপত্রে’ ঋণ দেয় সোনালী ব্যাংক!

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় করপোরেট শাখা

নজরুল ইসলাম:ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে ঋণের জন্য আবেদন করে দুটি প্রতিষ্ঠান। স্বল্প সময়ে ঋণও পেয়ে যায় তারা। তবে ব্যাংকের কর্মকর্তারা দলিলপত্র যাচাই-বাছাই ও প্রস্তাব প্রক্রিয়াকরণ সঠিকভাবে সম্পাদন ও সংরক্ষণ করেননি। পাশাপাশি ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে যথাযথভাবে গ্রাহক নির্বাচন, মঞ্জুরি ও বিতরণ করা ঋণগুলো তদারকি এবং ব্যাংকের পাওনা আদায়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এতে যথাসময়ে ঋণের টাকা আদায় না করায় খেলাপিও হয়। ঘটনাটি ঘটেছে সোনালী ব্যাংক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় করপোরেট শাখায়। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এক অনুসন্ধানে এ তথ্য উঠে এসেছে। এ ঘটনায় দুটি মামলাও দায়ের করা হয়েছে। সহকারী পরিচালক আফনান জান্নাত কেয়া মামলা দুটি দায়ের করেছেন, যা তদন্ত করছেন উপপরিচালক রাউফুল ইসলাম।

দুটি মামলায়ই শাখাপ্রধান ড. মো. হাফিজুর রহমানকে এক নম্বর আসামি ও শাখা কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেনকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে। এছাড়া ব্যাংক কর্মকর্তা আমির উদ্দিন ও লিমা ট্রেডিংয়ের মালিক লিমা রহমান এবং ইউনিভার্সেল টেকনোলজিক্যাল সার্ভিসেস লিমিটেডের মালিক কেএম রেজাউল হোসাইনকে একটি করে মামলায় আসামি করা হয়।

দুদকের এজাহারে অভিযোগ করা হয়, প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে কাগুজে প্রতিষ্ঠান লিমা ট্রেডিংয়ের নামে রেকর্ডপত্র তৈরি করে ১৫ লাখ টাকা ঋণ দেয়া হয়। ঋণগ্রহীতা লিমা রহমানের নাম জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী লিমা আক্তার। বন্ধকি সম্পত্তি শনাক্ত ও চিহ্নিত করা ছাড়াই ঋণ বিতরণ করা হয়। ২০২১ সালের ৯ নভেম্বর তারিখে সুদসহ পাওনা দাঁড়ায় ৩২ লাখ ৮৪ হাজার ৬১৩ টাকা।

২০১১ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর সোনালী ব্যাংক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় করপোরেট শাখায় চলতি হিসাব খোলেন লিমা ট্রেডিংয়ের মালিক লিমা রহমান। প্রতিষ্ঠানটি গার্মেন্ট অ্যাকসেসরিজ সরবরাহের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। ব্যবসা সম্প্রসারণের জন্য ২০১১ সালের ১০ নভেম্বর লিমা রহমান ১৫ লাখ টাকার ঋণের আবেদন করেন। প্রস্তাবিত জামানতি সম্পত্তির মূল্যায়ন করে ১৬ নভেম্বর ১৫ লাখ টাকার ঋণ অনুমোদন দেয়া হয়, যার মেয়াদ ধরা হয় ২০১২ সালের ১৫ নভেম্বর। লিমা রহমানের স্বামীর নামে থাকা জামানতি সম্পত্তির মূল্যায়ন ও মর্টগেজ দলিল সম্পাদন করেন সোনালী ব্যাংক শাখা কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন ও শাখা প্রধান ড. মো. হাফিজুর রহমান। ঋণ মঞ্জুরি ক্ষমতা শাখার ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজারের আর্থিক ক্ষমতার আওতাভুক্ত হওয়ায় প্রধান কার্যালয়ের অনুমোদন নেয়া হয়নি।

অনুসন্ধানে দুদক মেসার্স লিমা ট্রেডিং নামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কোনো অস্তিত্ব খুঁজে পায়নি। মিরপুর মডেল থানাও জানিয়েছে, ওই ঠিকানায় কখনোই ওই প্রতিষ্ঠান ছিল না। বাড়িমালিক নুরুজ্জামানও একই কথা জানান। তফসিলের সম্পত্তির ক্রয় দলিল পর্যালোচনায় দেখা যায়, ঋণগ্রহীতা লিমা রহমানের স্বামী মুজিবুর রহমান ও তার ভাই হাবিবুর রহমান মোট ২০ শতাংশ জমির মালিক। তার মধ্যে মুজিবুর রহমান ১৩ শতাংশের মালিক। জমাভাগ নথি অনুযায়ী ২০.১ শতাংশ জমি দুই ভাইয়ের নামে রেকর্ড হয়। ঋণ গ্রহণকালে মুজিবুর রহমানের ১৩ শতাংশ জমি ব্যাংকের কাছে বন্ধক দেয়া হয়। বন্ধকি দলিলে জমির চৌহদ্দি যথাযথভাবে উল্লেখ না থাকায় জমিটি নিলামে বিক্রি করে ঋণের অর্থ সমন্বয় করা যায়নি। লিমা রহমান ভুয়া ঠিকানা দেখিয়ে ঋণের জন্য আবেদন করে অন্যের মালিকানাধীন জমি মর্টগেজ দেখিয়ে ১৫ লাখ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছেন।

শাখার ঋণ ও অগ্রিমের দায়িত্বে নিয়োজিত শাখা অফিসার শাহাদাত হোসেন দলিলপত্র যাচাই-বাছাই ও প্রস্তাব প্রক্রিয়াকরণ সঠিকভাবে সম্পাদন এবং সংরক্ষণ করেননি। পাশাপাশি ড. মো. হাফিজুর রহমান শাখা ব্যবস্থাপক হিসেবে ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে সঠিকভাবে গ্রাহক নির্বাচন, মঞ্জুরি ও বিতরণ, দলিলাদি সম্পাদন, ঋণগুলো তদারকি বা নজরদারি এবং পরে ব্যাংকের পাওনা আদায়ে কার্যকর পদক্ষেপ না নেয়ায় ঋণ ঝুঁকিপূর্ণ ও শ্রেণিকৃত হয়ে আদায় অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। এতে ব্যাংকের আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। ব্যাংক গঠিত পরিদর্শন ও নিরীক্ষা দলও সরেজমিনে

পরিদর্শনকালে ঋণের বিপরীতে ব্যাংকের অনুকূলে দায়বদ্ধ বন্ধকি সম্পত্তি খুঁজে পায়নি। প্রক্রিয়াটির সঙ্গে জড়িত ড. মো. হাফিজুর রহমান, শাহাদাত হোসেন ও ঋণগ্রহীতা লিমা রহমানকে আসামি করা হয়, যার মামলা নম্বর ১৫। তারা দণ্ডবিধির ৪০৯/ ৪২০/ ৪৬৭/ ৪৬৮/ ৪৭১/ ১০৯ এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছন।

দুদকের এজাহারে অভিযোগ করা হয়, প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে কাগুজে প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সেল টেকনোলজিক্যাল সার্ভিসেস লিমিটেডের নামে রেকর্ডপত্র তৈরি করে সিসি খাতে ১০ লাখ ও এসএমই খাতে পাঁচ লাখসহ মোট ১৫ টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। ঋণগ্রহীতার নাম কেএম রেজাউল হোসাইন। বন্ধকি সম্পত্তি শনাক্ত ও চিহ্নিত করা ছাড়াই ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। ২০২১ সালের ৯ নভেম্বর তারিখে সুদসহ পাওনা দাঁড়ায় ৪৪ লাখ ৮৬ হাজার ৫০৯ টাকা। ২০১১ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর সোনালী ব্যাংক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় করপোরেট শাখায় চলতি হিসাব খোলেন ইউনিভার্সেল টেকনোলজিক্যাল সার্ভিসেস লিমিটেডের মালিক কেএম রেজাউল হোসাইন। তার হিসাবটিতে শনাক্তকারী হিসেবে স্বাক্ষর করেন সহকারী ব্যবস্থাপক আমীর উদ্দিন। ২০১১ সালের ৯ অক্টোবর রেজাউল ২০ লাখ টাকার সিসি (হাইপো) ঋণের জন্য আবেদন করেন। ৩১ অক্টোবর ১০ লাখ টাকার সিসি ঋণ মঞ্জুর করা হয়, যার মেয়াদ ছিল ২০১২ সালের ৩১ অক্টোবর। বাংলাদেশ ব্যাংকের ২০২১ সালের ১২ জানুয়ারির এক তদন্ত প্রতিবেদন অনুসারে, কেএম রেজাউল হোসাইন অন্যের মালিকানাধীন জমি মর্টগেজ দেখিয়ে শাখা কর্মকর্তাদের সহায়তায় ১০ লাখ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। শাখা ব্যবস্থাপক ড. মো. হাফিজুর রহমান ও  শাখা কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন বন্ধকি সম্পত্তির অস্তিত্ব যাচাই না করে নিজ ক্ষমতার মধ্যে ১০ লাখ টাকার সিসি ও পাঁচ লাখ টাকার এসএমই লোন দিয়ে একে অন্যের সহায়তায় ১৫ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন, যা দণ্ডবিধির ৪০৯/ ৪২০/ ৪৬৭/ ৪৬৮/ ৪৭১/ ১০৯ এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ ঘটনায় জড়িত ড. মো. হাফিজুর রহমান, শাহাদাত হোসেন, ঋণগ্রহীতা কেএম রেজাউল হোসাইন ও আমির উদ্দিনকে আসামি করা হয় (মামলা নম্বর ১৪)।

অভিযোগ প্রসঙ্গে হাফিজুর রহমান শেয়ার বিজকে বলেন, ‘আমি আদালত থেকে জামিন নিয়েছি। তদন্ত কর্মকর্তা বন্ধকি সম্পত্তি শনাক্ত করতে পারেননি। বাংলাদেশ ব্যাংক অভিযোগ থেকে আমাকে অব্যাহতি দিয়েছে। ভুয়া অভিযোগের ভিত্তিতে দুদক মামলা করেছে। দুদক সেকেন্ডম্যান, থার্ডম্যান ও ফোর্থম্যানকে ধরেইনি। মামলায় এজিএম হেলাল উদ্দিন, অ্যাডভোকেট শাহরিন সুলতানা মালা ও আমিনুল ইসলামের নামই নেই। ক্রেডিট কমিটি ঋণ অনুমোদন দিয়েছে, তাদের নামও এলো না। শাহাদাত হোসেন এক নম্বর আসামি হওয়ার কথা। তাকে করা হয়েছে দুই নম্বর আসামি। আমির উদ্দিন অ্যাকাউন্ট না খুললে তো আমরা লেনদেনও করতে পারতাম না। লিমা ট্রেডিং দুদকের ভয়ে সব টাকা পরিশোধ করে দিয়েছে। সোনালী ব্যাংক লোকাল অফিস শাখা থেকে নেয়া ঋণ ১০০ বছরেও তারা আদায় করতে পারেনি। সেটা কেউ লেখে না। সোনালী ব্যাংক কিছুই করতে পারেনি। ১৮ হাজার কোটি টাকা মাফ করে দিয়েছে।’

সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আফজাল করিম শেয়ার বিজকে বলেন, ‘বিষয়টি আমি জানি না। আর্থিক জালিয়াতি হলে তো দুদকে মামলা হয়ই। আমাদের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে প্রমাণ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আসামিদের কেউ তো অবসরে চলে গেছেনÑতখন তিনি বলেন, ‘তাহলে অবসরোত্তর সুবিধা পাবে না। দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী মানিসোর্সসহ অন্যান্য মামলা করার সুযোগ আছে। ব্যাংক সেটি করবেও। আমি খোঁজ নিচ্ছি।’

সূত্রঃ শেয়ার বিজ 

Bangladesh-Bank-BB-Daily-Bangladesh-2204211221

Federal Reserve Bank representatives meet BB governor

A meeting was held between a team of the Federal Reserve Bank of the United States and the Bangladesh Bank Governor Abdur Rouf Talukder.

Following the meeting, Bangladesh Bank spokesperson Mezbaul Haque told media that this was a routine meeting which was attended by representatives from the Federal Reserve Bank’s various departments including risk management department, back office, cyber security unit, relationship management department, and Asia Pacific desk of the bank.

The topics of discussion of the meeting include enquiries about any difficulty faced in transaction with the Federal Reserve Bank, how can their service be improved, enquiries about the governor’s action plan for G20 and other global events.

Source: TBS News
World-Bank-Group

World Bank urges prompt fulfillment of conditions for $250m budgetary support

The World Bank (WB) has urged Bangladesh to quickly implement the conditions to receive an additional $250 million as budget support under the Bangladesh Second Recovery and Resilience Development Policy Credit.

Under this loan agreement, the organisation gave $250 million in budget support to Bangladesh in March last year.

At that time, the WB imposed 12 conditions on the country including formulating the national tariff policy, automated invoicing system for income tax, amending the Bank Company Act, formulation and implementation of a reclassification list of social protection etc – most of which have not yet been finally implemented.

On Tuesday, the representatives of the World Bank held a meeting with the Additional Secretary of the Finance Department Rehana Perven. In the meeting, the WB officials urged for the speedy implementation of the conditions.

On condition of anonymity, an official of the finance ministry told The Business Standard that this budget support is very important amid the ongoing dollar crisis in the country. “The implementation of most of the conditions of the World Bank has already started. We will prioritise fulfilling the conditions for getting the loan.”

He said that the World Bank has given 12 conditions for this loan, some of which are under implementation. For example, the National Tariff Policy has already been drafted which will be finalised in an inter-ministerial meeting soon.

Another condition was to introduce an automated invoicing system for income tax and the NBR has already implemented it, said the official.

Besides, initiatives have also been taken to amend the Bank Company Act as per the conditions. The International Monetary Fund has also made amendments to the act as a condition of its $4.7 billion loan.

Other terms of the World Bank include the creation of a public procurement authority. Officials at the finance division said that works to fulfil this condition have already achieved a lot of progress.
To meet the WB conditions, the Bangladesh Bureau of Statistics (BBS) is implementing a project to develop a National Household Database. The power department has also issued a circular regarding the introduction of public-private partnerships (PPP) in the power transmission sector.

However, there is no progress in fulfilling the conditions such as the formulation and implementation of a reclassification list of social protection, issuing circulars for strengthening corporate governance of state-owned banks and adoption of the Mujib Climate Prosperity Plan.

Source: TBS News

prothomalo-bangla_2022-11_ea155066-11a5-4afd-93b6-96fbc0929943_f521d577-518f-46cd-a59c-63b1783f6d5f

আইএমএফের ঋণের সুদহার কত

লেনদেনে ভারসাম্য, বৈদেশিক বাণিজ্যের ঘাটতি মেটানো, বাজেটসহায়তা ও জলবায়ুসংকট মোকাবিলার মতো বিভিন্ন প্রয়োজনে সদস্যদেশগুলোকে শর্ত সাপেক্ষে ঋণ দেয় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। এই ঋণ দেওয়া হয় সংস্থাটির নিজস্ব অর্থব্যবস্থা স্পেশাল ড্রয়িং রাইটস বা এসডিআরের মাধ্যমে। কিন্তু কোথা থেকে এত অর্থ পায় আইএমএফ? তাদের দেওয়া ঋণে সুদের হারইবা কেমন, তা থাকছে এই প্রতিবেদনে।

এসডিআর কী

স্পেশাল ড্রয়িং রাইটস বা এসডিআর হলো আইএমএফের একধরনের নিজস্ব অর্থব্যবস্থা। আইএমএফের সম্পদ ও ঋণকে এসডিআর এককে গণনা করা হয়। তবে এটি নিজে কোনো মুদ্রা নয়, একটি ধারণামাত্র। এসডিআরের মান ধরা হয় মার্কিন ডলার, ইউরো, চীনা রেনমিনবি, জাপানি ইয়েন ও পাউন্ড—এই পাঁচ মুদ্রার আনুপাতিক গড় হিসাব করে। তবে বিশ্বের সব কেন্দ্রীয় ব্যাংকই এর মূল্যমানকে সমর্থন করে। যেকোনো মুদ্রার সঙ্গে এই ভার্চ্যুয়াল সম্পদকে বিনিময় করা যায়। ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো আইএমএফের এসডিআরকে যেকোনো মুদ্রায় নিজেদের রিজার্ভে গণনা করতে পারে। এর মাধ্যমে একটি দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে যায়। নিয়মিত এসডিআরের মূল্যমান হালনাগাদ করা হয়। গত শুক্রবার ১ এসডিআরের মূল্যমান ছিল ১ দশমিক ৩৩ মার্কিন ডলার।

কোথা থেকে অর্থ পায় আইএমএফ

মূলত তিনটি উৎস থেকে আইএমএফ তহবিল বা অর্থ সংগ্রহ করে। এক. সদস্য চাঁদা বা কোটা। দুই. ঋণ গ্রহণ। তিন. দ্বিপক্ষীয় ঋণচুক্তি। আইএমএফের সদস্যের মধ্যে কোন দেশ কত টাকা চাঁদা দেবে, তা কোটা আকারে নির্দিষ্ট করে দেওয়া আছে। একটি দেশের প্রদত্ত চাঁদার পরিমাণ বিশ্ব অর্থনীতিতে দেশটির অর্থনৈতিক আকারের সঙ্গে সংগতি রেখে নির্ধারণ করা হয়। এই চাঁদাই সংস্থাটির আয়ের প্রধান উৎস। তবে কোনো সদস্যদেশ চাইলে নির্ধারিত কোটার বেশি চাঁদা দিতে পারে।

সদস্যদের চাঁদা থেকে আইএমএফের তহবিলে জমা আছে প্রায় ৪৭ হাজার ৬২৭ কোটি ২০ লাখ এসডিআর। এর মধ্যে বাংলাদেশের জন্য নির্দিষ্ট রয়েছে ১০৬ কোটি ৬৬ লাখ এসডিআর, যা মোট এসডিআরের দশমিক ২২ শতাংশ।

এ ছাড়া সদস্যরাষ্ট্র থেকে প্রয়োজন হলে আইএমএফ ঋণ নেয়। এটিও সংস্থাটির আয়ের একটি উৎস। এর পাশাপাশি সদস্যদেশগুলোকে আইএমএফ ঋণসহায়তা দেয়। এ থেকে সুদবাবদ যে অর্থ আসে, সেটাও সংস্থাটির আয়ের বড় উৎস।

কত অর্থ আছে আইএমএফের কাছে

১৯৪৪ সালে ৪৪টি দেশ মিলে আইএমএফ গঠন করে। বর্তমানে বিশ্বের ১৯০টি দেশ আইএমএফের সদস্য। সদস্য চাঁদা ও অন্যান্য আয় মিলিয়ে বর্তমানে আইএমএফের মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৯৭ হাজার ৭০০ কোটি (৯৭৭ বিলিয়ন) এসডিআর। এর মধ্যে ঋণ দেওয়ার পর্যায়ে রয়েছে ৭১ হাজার ৩০০ কোটি (৭১৩ বিলিয়ন) এসডিআর। একে মার্কিন মুদ্রায় প্রকাশ করলে প্রায় ১ ট্রিলিয়ন বা ১ লাখ কোটি মার্কিন ডলার হয়।

যত ধরনের ঋণ কর্মসূচি রয়েছে

মোটাদাগে আইএমএফ তিন ধরনের তহবিল থেকে ঋণ দেয়। এক. সাধারণ সম্পদ হিসাব (জিআরএ)। দুই. দারিদ্র্য হ্রাস ও প্রবৃদ্ধি ট্রাস্ট (পিআরজিটি)। তিন. নতুন গঠিত রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি ট্রাস্ট (আরএসটি) তহবিল। এর মধ্যে জিআরএ তহবিল থেকে বাজারভিত্তিক সুদহারনির্ভর কঠিন শর্তের ঋণ দেওয়া হয়। এটি যেকোনো সদস্যদেশ নিতে পারে। পিআরজিটি তহবিল থেকে দেওয়া হয় নমনীয় শর্তের ঋণ। এটি মূলত নিম্ন আয়ের দেশগুলোর জন্য। এ ধরনের ঋণে বর্তমানে কোনো সুদ দিতে হয় না। আর নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশকে জলবায়ু পরিবর্তন ও করোনাভাইরাসের মতো দীর্ঘমেয়াদি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আরএসটি তহবিল থেকে ঋণ দেওয়া হয়। আইএমএফের এই তিনটি তহবিলের অধীনে আবার ১৩ ধরনের ঋণ কর্মসূচি রয়েছে। আইএমএফের পরিচালনা পর্ষদ বিভিন্ন ঋণ কর্মসূচির জন্য বিভিন্ন সুদহার নির্ধারণ করে।

বাংলাদেশ প্রথম কখন ঋণ নেয়

ছোট-বড় আকার মিলিয়ে আইএমএফ থেকে এ পর্যন্ত মোট ১১ বার ঋণ নিয়েছে বাংলাদেশ। প্রথমবার নেয় ১৯৭৪ সালে। এরপর ১৯৮০-৯০ সময়ে পাঁচবার ঋণ নেওয়া হয়। ১৯৯০ সালে নেওয়া ঋণের ক্ষেত্রে আইএমএফের অন্যতম শর্ত ছিল মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) চালু করা। ২০০৩ সালে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোর লোকসান কমিয়ে আনার শর্তে ঋণ নেয় বাংলাদেশ। প্রায় এক দশক পর ২০১২ সালে সাত কিস্তিতে ১০০ কোটি ডলার ঋণ চুক্তি করে বাংলাদেশ। এর অন্যতম শর্ত ছিল নতুন ভ্যাট আইন প্রণয়ন করা। এ আইন করতে দেরি করায় শেষের দুই কিস্তি আটকেও দিয়েছিল আইএমএফ। সর্বশেষ চলতি বছরের ৩০ জানুয়ারি বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ অনুমোদন করে সংস্থাটি।

সূত্রঃ প্রথম আলো

Bangladesh-Bank-BB-Daily-Bangladesh-2204211221

Bangladesh Bank to release new Taka 1000 notes from Thursday

Bangladesh Bank (BB) is going to issue new banknotes of Taka 1,000 denomination signed by its governor, Abdur Rouf Talukder, from Thursday.

It will initially be issued from the Motijheel office of the central bank and later from other branches as well, reports BSS citing a press release.

The colour, size, watermark, design, and other security features of the new notes will be identical to those of the notes currently in circulation, it said.

Alongside the newly printed notes, the existing notes will continue to be valid notes at the same time, it added.

Source: The Financial Express